ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৯ নভেম্বর ২০২২ ||  ১৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯ ||  ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

প্রকাশের সময়:
১৬:১০, ২৪ নভেম্বর ২০২২

আমাদের বার্তা প্রতিবেদক

জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় প্রধান সমন্বয়ক অমি: সিটিটিসি প্রধান

প্রকাশের সময়: ১৬:১০, ২৪ নভেম্বর ২০২২

আমাদের বার্তা প্রতিবেদক

জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় প্রধান সমন্বয়ক অমি: সিটিটিসি প্রধান

ঢাকার বিজ্ঞ সিএমএম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে দুই জঙ্গি ছিনতাই মামলার এজাহারনামীয় একজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ(ডিএমপি)’র কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি)।

গ্রেফতারকৃত জঙ্গির নাম- মেহেদী হাসান অমি ওরফে রাফি।

আজ বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর ২০২২ খ্রি.) দুপুর ১২:০০ ঘটিকায় ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার ও সিটিটিসি প্রধান মোঃ আসাদুজ্জামান বিপিএম-বার।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বলেন, গত রোববার (২০ নভেম্বর ২০২২খ্রি.)  ঢাকার আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশকে আঘাত করে ২ জন সাজাপ্রাপ্ত আসামীকে তার সহযোগিরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ সংক্রান্তে ডিএমপি’র কোতয়ালী থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মামলা রুজু হয়। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পায় সিটিটিসি। সিটিটিসি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার (২৩ নভেম্বর ২০২২ খ্রি.) রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে এজাহারনামীয় আসামি মেহেদী হাসান অমি ওরফে রাফিকে গ্রেফতার করা হয়।

সিটিটিসি প্রধান বলেন, মেহেদী হাসান অমি ওরফে রাফি নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন “আনসার আল ইসলাম” এর শীর্ষনেতা বরখাস্তকৃত মেজর জিয়ার সাথে সমন্বয়পূর্বক সংগঠনের আসকারী শাখার সদস্যদের রিক্রুট করে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিনতাইকৃত পলাতক জঙ্গী মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামি মইনুল হাসান শামিম ও মামলার এজাহারনামীয় আসামি মোজাম্মেল হোসেন ওরফে সাইমন যার সাংগঠনিক নাম- শাহরিয়ার। আসামী অমি ওরফে রাফি সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতা ও বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতো।

রাফি তার কাজের দক্ষতা ও সাহসিকতার মাধ্যমে অল্প দিনের মধ্যে  সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করে। এজন্য তাকে সিলেট অঞ্চলের ‘দাওয়া বিভাগ’র প্রধান হিসেবে নিয়োগ করা হয় মর্মে উল্লেখ করেন পুলিশের এই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

তিনি আরো বলেন, সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতারা আদালত প্রাঙ্গণ হতে জঙ্গি আসামীদেরকে ছিনিয়ে নেয়ার জন্য পরিকল্পনার ছক তৈরি করেন। সেই ছক মোতাবেক অমি ওরফে রাফি আদালতে মামলাসমূহের নিয়মিত হাজিরা দেওয়ার সময় মামলার অন্যান্য আসামিদের সাথে যোগাযোগ রাখতো। উক্ত জঙ্গি ছিনতাই ঘটনায় সে প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে। এরই ধারাবাহিকতায় গত  রোববার (২০ নভেম্বর ২০২২খ্রি.) তারিখে পরিকল্পনা মোতাবেক ঢাকা সিএমএম কোর্ট প্রাঙ্গণে জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনাটি ঘটায়। ঘটনাটি ঘটানোর পূর্বে ছিনতাইকৃত জঙ্গিদের হাত খরচের জন্য সে বেশ কিছু নগদ টাকা প্রদান করে। পলাতক আসামিদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে। গ্রেফতারকৃতকে রিমান্ডের আবেদনসহ বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত অমি ওরফে রাফির নামে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৬ সালে ডিএমপি ঢাকা মোহাম্মদপুর, সূত্রাপুর এবং বাড্ডা থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে পৃথক পৃথক তিনটি মামলা রয়েছে। এছাড়াও ২০১০ এবং ২০১২ সালে সিলেট কোতয়ালী থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে পৃথক দু’টি মামলা হয়েছে বলে জানান সিটিটিসি প্রধান।