ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪ , ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

হাইকোর্টের আদেশ পেলে আইনি লড়াইয়ে যাবে বুয়েট: উপ-উপাচার্য

শিক্ষা

আমাদের বার্তা, ঢাবি

প্রকাশিত: ১১:২৮, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

সর্বশেষ

হাইকোর্টের আদেশ পেলে আইনি লড়াইয়ে যাবে বুয়েট: উপ-উপাচার্য

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ এখন পর্যন্ত পায়নি বুয়েট কর্তৃপক্ষ। হাইকোর্টের আদেশ পাওয়ার পর আইনি লড়াইয়ে যাবে বুয়েট কর্তৃপক্ষ। সেই সঙ্গে আইনি উপায়ে শেষ অবধি লড়াই চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন বুয়েট উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান। 

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বুয়েটে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। এদিকে ঈদের ছুটি শেষে বিশ্ববিদ্যালয় খুললেও ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নেননি বেশির ভাগ শিক্ষার্থী। 

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমরা কোর্টের কোনো অর্ডার পাইনি। আমরা যতটুক জানতে পেরেছি, ২২ এপ্রিল পর্যন্ত কোর্ট বন্ধ রয়েছে। হয়তো এর পর অর্ডারটি পেতে পারি। হাইকোর্টের আদেশটি হাতে পেলে আমরা দেখব সেখানে কী বলা হয়েছে। ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধকরণের যে বিজ্ঞপ্তিটি ছিল, সেই বিজ্ঞপ্তি স্থগিত করা হয়েছে না কি, বলা হয়েছে স্থগিত করা হলো অথবা কেন বাতিল করা হলো কিংবা কেন স্থগিত করা হবে না? নিশ্চয়ই হাইকোর্ট আমাদের কারণ দর্শাবেন। যদি কারণ দর্শানো হয় তখন কনটেন্ট-মেরিট দেখে আমাদের উত্তর দিতে হবে। এই উত্তর না দেওয়া ছাড়া উপায় নেই, কারণ এটি আইনি প্রক্রিয়ার অংশ।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকের মধ্যে একটি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে যে, আমরা বুয়েট কর্তৃপক্ষ আইনি প্রক্রিয়ার বাহিরে থাকতে চাচ্ছি। এটি আসলে কোনোভাবেই সম্ভব নয়। আইনি প্রক্রিয়ার স্বাভাবিক গতিতেই আমাদের অবশ্যই রেসপন্স করতে হবে এবং আমরা করব। ২০১৯ সালে আমরা যেই বিজ্ঞপ্তিটি দিয়েছিলাম সেটি কেন, কোন প্রেক্ষাপটে এবং আমাদের অর্ডিন্যান্সের কোন ক্ষমতাবলে ইত্যাদি উল্লেখ করে আমরা সেই জবাব দেব।’

বুয়েট উপ-উপাচার্য বলেন, ‘আইনি যে প্রক্রিয়া রয়েছে এটি শেষ অবধি আমরা কনটেস্ট করব। অ্যাপিলেড ডিভিশনে যাওয়া অ্যাপিল করা। মোট কথা আইনি প্রক্রিয়ায় সম্পূর্ণ পথটিই আমরা ব্যবহার করব এবং সেখানে আমরা একা নই, আমাদের সঙ্গে আমাদের শিক্ষার্থী ও অ্যালামনাইরা থাকবেন।’

বুয়েটে এখন ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বুয়েটের উপ-উপাচার্য বলেন, ‘যেহেতু আমরা কোর্টের কাছ থেকে আদেশ পাইনি। কোনো অর্ডার আমাদের হাতে আসেনি, কাজেই ২০১৯ সালের বিজ্ঞপ্তি ছিল সেটি এখন পর্যন্ত ভ্যালিড আছে বলেই আমরা মনে করি। আর যদি আইনি প্রক্রিয়ায় এমন হয়, বিশ্ববিদ্যালয় হেরে গেল, তাহলেই একমাত্র ক্যাম্পাসে রাজনীতি ফিরবে।’

এদিকে টানা ১৩ দিনের রোজা, ঈদুল ফিতর ও পয়লা বৈশাখের ছুটি শেষে বুয়েটের একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হলেও ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নেননি আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। গতকাল ছুটি শেষে বুয়েট ’২১ (দ্বিতীয় বর্ষ) ব্যাচের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষাতে ১ হাজার ২৭১ জনের মধ্যে মাত্র ১১ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছেন। অন্যদিকে বুয়েট ’১৮ (চতুর্থ বর্ষ) ব্যাচের কোনো শিক্ষার্থীই অংশ নেননি।

বুয়েট শিক্ষার্থী সূত্রে জানা যায়, এখন একাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী সব বর্ষের ক্লাস থাকাতে আপাতত পরীক্ষা চলছে। যদিও রাজনীতিমুক্ত বুয়েট ক্যাম্পাসে দাবির আন্দোলনের ফলে বর্জন রয়েছে ক্লাস-পরীক্ষা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের (ডব্লিউআরই) এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আজকে পরীক্ষা ছিল বেশির ভাগ শিক্ষার্থী অংশ নেননি। এখন আগামীতে পরীক্ষায় অংশ নেবেন কি না, সেটি বলা যাচ্ছে না। কারণ এটি তো আর একার সিদ্ধান্ত নয়, একটি সম্মিলিত সিদ্ধান্ত।’

পরবর্তী আন্দোলনের সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের সিদ্ধান্ত এখনো জানা যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, এখন পর্যন্ত দাবি আদায়ে অনড় অবস্থানে রয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনার পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ হয়। গত ২৮ মার্চ দিবাগত রাত ১টার দিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বুয়েট ক্যাম্পাসে ঢুকলে ছয় দফা দাবি তুলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের ডাক দেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখতে শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ছয় সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি পর্যন্ত গঠন করে বুয়েট প্রশাসন।

জনপ্রিয়