ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪ , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

দামে আছে, মানে নেই জবির ছাত্রী হলের খাবার

শিক্ষা

আমাদের বার্তা, জবি

প্রকাশিত: ১৯:২২, ১৫ মে ২০২৪

সর্বশেষ

দামে আছে, মানে নেই জবির ছাত্রী হলের খাবার

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ছাত্রীদের একমাত্র হল বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল। এ হলের ক্যান্টিনে খাবার দাম ঠিক থাকলেও, খাবারের মান নিন্মমানের। খাবারের সঙ্গে হাতের আঙটি, মাছি, তেলাপোকা পাওয়ারও নজির রয়েছে।  সর্বশেষ বুধবার হলের খাবারে মাছি, তেলাপোকা পেয়েছেন ছাত্রীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রী বলেন, গত এক মাস ধরে হলের খাবারের মান খুবই খারাপ। বারবার অভিযোগ দিয়েও সুরাহা হয়নি। 
বুধবার দুপুরে খাওয়ার সময় তরকারিতে তেলাপোকা এবং মাছি পেয়েছি। ক্যানটিনে খাবার ঢাকা থাকে না। যারা খাবার পরিবেশন করেন, তারাও কোনো সেইফটি ব্যবহার করেন না। হলের দায়িত্বরত ম্যামকেও পাওয়া যায় না।

জানা যায়, হলের এক প্লেট ভাতের দাম দশ টাকা, মুরগি ও মাছের দাম ৩৫ টাকা,  গিলা-কলজা ও খাসির মাথার মুগডালের দাম ৪০ টাকা, ভর্তা ও সবজির দাম ১০ টাকা। শিক্ষার্থীদের দাবি, হলে এক বেলা খেতে শিক্ষার্থীদের খরচ হয় কমপক্ষে ৬০ টাকা, ওই হিসেবে খাবারের মান নিন্মমানের। 

মাস্টার্সের অধ্যয়নরত এক শিক্ষার্থী বলেন, আমি দুদিন নিজে রান্না করতে পারিনি, হলের খাবার খেয়েছি। পরে সমস্যা দেখা দিয়েছে। মাছে কেমিক্যালের গন্ধ পাওয়া যায়, তরকারিতে হলুদের গন্ধ থাকে। এ ছাড়াও খাবারে হাতের আংটি, তেলাপোকা, অন্যান্য পোকা পাওয়া যায়। এটা খুবই অস্বাস্থ্যকর।

এ বিষয়ে হলের ক্যানটিন ম্যানেজার রুবেল বলেন, মাছি বা পোকা উড়ে যেয়ে পড়তে পারে। বিষয়টি নিয়ে আমি অবগত নই। খাবারের মান যথেষ্ট ভালো।

ক্যানটিন কমিটির আহ্বায়ক সহযোগী অধ্যাপক ড. নিগার সুলতানা বলেন, বুধবার খাবারে মাছি পাওয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ ছাত্রীরা করেননি। এমনটা হওয়ার কথা না। আমরা রেগুলার এটা দেখভাল করি। 

অস্বাস্থ্যকর উপায়ে খাবার পরিবেশনের বিষয়ে তিনি বলেন, যারা খাবার পরিবেশন করেন তারা হয়তো গ্লাভস পড়েন না। এ বিষয়টি আমরা দেখবো।
 

জনপ্রিয়