ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪ , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

ইসরায়েলে হামলার পর বিশ্ববাজারে তেলের দাম বৃদ্ধি

আন্তর্জাতিক

আমাদের বার্তা ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২:০২, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

সর্বশেষ

ইসরায়েলে হামলার পর বিশ্ববাজারে তেলের দাম বৃদ্ধি

ঘোষণা দিয়ে ইসরায়েলে নজিরবিহীন হামলা চালিয়েছে ইরান। মূলত সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের দূতাবাসে ইসরায়েলি হামলার জবাবে এ পাল্টা হামলা চালিয়েছে তেহরান। আর ইসরায়েলে ইরানের হামলার পরেই বিশ্ববাজারে বেড়ে গেছে তেলের দাম।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার দামেস্কে অবস্থিত ইরানের কনস্যুলেটে হামলা চালিয়ে দেশটির কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তাকে হত্যা করে ইসরায়েল। এ ঘটনার প্রতিশোধ নিতে একের পর এক হুঁশিয়ারি দিয়ে আসছিল ইরান। ইরান ইসরায়েল উত্তেজনার প্রভাব পড়ে আন্তর্জাতিক তেলের বাজারে।

ইরানের কনস্যুলেটে ইজরায়েলি হামলার পর আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়তে শুরু করে। শুক্রবার বৈশ্বিক বেঞ্চমার্কে প্রতি ব্যারেল ক্রুড তেলের দামে উঠেছিল ৯২.১৮ ডলার, যা অক্টোবরের পর থেকে সর্বোচ্চ।

ইরান ইসরায়েলে ড্রোন ও মিসাইল দিয়ে পাল্টা হামরার পর তেলের দাম আরও একলাফ বেড়েছে এবং এই দাম কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা নির্ভর করছে দুদেশের পরবর্তী পদক্ষেপের ওপর। ইসরায়েল যদি ইরানে পাল্টা হামলা চালায় এবং ইরানও যদি তার জবাব দিতে থাকে তাহলে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করবে। ইরান ইসরায়েল সংঘাত হলে বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেলের সরবরাহ ব্যাপকভাবে বিঘ্নিত হবে।

বিশ্বে প্রতিদিন যে জ্বালানি তেলের চাহিদা রয়েছে তার বেশিরভাগ সরবরাহ হয় মধ্যপ্রাচ্য থেকে। ইরান নিজেও একটি বৃহৎ জ্বালানি তেল সরবরাহকারী দেশ। মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে থেকে বিশ্ববাজারে যে জ্বালানি তেল সরবরাহ হয়ে থাকে তার একটি বিরাট অংশ যায় ইরানের নিয়ন্ত্রণাধীন এবং এর পার্শ্ববর্তী জলপথ দিয়ে।

ইরান ইসরায়েল সংঘাত হলে এসব সরবরাহ চ্যানেল বন্ধ করে দেবে ইরান। ফলে বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেলের সরবরাহ ব্যাপকভাবে বিঘ্নিত হবে।

ইরানের হামলার জবাবে ইসরায়েল পাল্টা হামলা চালাতে পারে এমনটা ধারণা করছেন অনেকে। তেমনটি ঘটলে ইরান ইসরায়েল মুখোমুখী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং সমগ্র অঞ্চলে সেই সংঘাত ছড়িয়ে পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করছেন অনেকে।

শনিবার রাতের এই হামলাকে অপারেশন ট্রু প্রোমিজ নাম দিয়েছে ইরান। এ হামলাকে সীমিত ও নির্ধারিত বলে জানিয়েছেন ইরানি কর্মকর্তারা। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ইরান কী করতে সক্ষম তার সামান্য চিত্র দেখাল মাত্র। এটা এমন একটি দৃশ্য যা কখনো কেউ দেখেনি।

পাল্টা হামলার আশঙ্কায় সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় আছে ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী, একই সঙ্গে ইসরায়েলের প্রতিও সতর্কবার্তা দিয়ে রেখেছে দেশটি। রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে দেওয়া বিবৃতিতে আইআরজিসির এক কমান্ডার জানান, ইসরায়েল যদি প্রতিক্রিয়া দেখায় তাহলে তার চেয়েও কড়া প্রতিক্রিয়া দেখাবে ইরান।

জনপ্রিয়