ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪ , ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

সেন্ট মার্টিনে খাদ্যসংকট

জাতীয়

আমাদের বার্তা, কক্সবাজার 

প্রকাশিত: ১৮:৫৫, ১২ জুন ২০২৪

আপডেট: ১৮:৫৫, ১২ জুন ২০২৪

সর্বশেষ

সেন্ট মার্টিনে খাদ্যসংকট

সাত দিন ধরে কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে যাত্রী ও পণ্যবাহী নৌযানের চলাচল বন্ধ রয়েছে। নাফ নদীর শাহপরীর দ্বীপ বদরমোকাম এলাকার বিপরীতে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের নাইক্ষ্যংদিয়া থেকে বাংলাদেশি নৌযান লক্ষ্য করে দফায় দফায় গুলি ছোড়া হচ্ছে। গুলিতে হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও নৌযান ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আর এই কারণে এই পথে বন্ধ হয়ে গেছে নৌযান চলাচল। এতে বঙ্গোপসাগরের মধ্যে অবস্থিত ৮ বর্গকিলোমিটার আয়তনের প্রবালসমৃদ্ধ দ্বীপ সেন্ট মার্টিনের ১০ হাজার মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন। দ্বীপে দেখা দিয়েছে খাদ্যসংকট।

নৌ চলাচল বন্ধ থাকায় সাত দিন ধরে দ্বীপের মানুষ জরুরি প্রয়োজনে টেকনাফ যেতে পারছেন না। টেকনাফ থেকেও সেন্ট মার্টিনে পাঠানো যাচ্ছে না চাল, ডাল, ডিম, মুরগি, ভোজ্যতেল, জ্বালানি, শাকসবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। ফলে দ্বীপে খাদ্যসহ নিত্যপণ্যের সংকট দেখা দিয়েছে।

কোনো কারণ ছাড়াই বাংলাদেশি নৌযান লক্ষ্য করে দফায় দফায় গুলি ছোড়ার ঘটনায় মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবাদপত্র পাঠাচ্ছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাতে কাজ হচ্ছে না। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রোগীবাহী একটি স্পিডবোট লক্ষ্য করে মিয়ানমার থেকে ১০-১২টি গুলি ছোড়া হয়। কয়েকটি গুলি স্পিডবোটে লাগলেও অল্পের জন্য যাত্রীরা প্রাণে রক্ষা পান। এর আগে ৮ জুন দুপুরে টেকনাফ থেকে সেন্ট মার্টিনগামী পণ্যবাহী একটি ট্রলারে ৩০-৪০টি গুলিবর্ষণ করে মিয়ানমার সশস্ত্র গোষ্ঠী। তাতে কেউ হতাহত না হলেও ট্রলারটির বিভিন্ন স্থানে সাতটি গুলি লাগে।

সেন্ট মার্টিন দ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা মুজিবুর রহমান বলেন, রাখাইন রাজ্যের নাইক্ষ্যংদিয়া থেকে দফায় দফায় গুলিবর্ষণের ঘটনায় গত সাত দিন ধরে টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে যাত্রীবাহী নৌযানের চলাচল বন্ধ রয়েছে। তাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রীসহ হতদরিদ্রদের ভিজিডি ও ভিজিএফ চালও সেন্ট মার্টিনে পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। ওপারের গুলিবর্ষণ বন্ধ না হলে দ্বীপের ১০ হাজার মানুষের দুর্ভোগ বাড়বে। 

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আদনান চৌধুরী বলেন, মিয়ানমারের দিক থেকে কারা গুলি ছুড়ছে, আরাকান আর্মি নাকি বিজিপি, তা নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না। সংকটের অবসান না হওয়া পর্যন্ত টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌপথে নৌ চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

দ্বীপের পূর্ব দিকে জেটিঘাটে কয়েক শ দোকান-হোটেল রেস্তোরাঁ নিয়ে সেন্ট মার্টিনের প্রধান বাজার। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, অধিকাংশ দোকানপাটে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী মজুত নেই। কয়েকটি দোকানে কিছু তরকারি, চাল-আটা-ময়দা, ভোজ্যতেল, জ্বালানি থাকলেও তা বেচাবিক্রি হচ্ছে অতিরিক্ত দামে। বাজারের উত্তর পাশে একটি দোকানে গতকাল একটি ডিম বিক্রি হয়েছে ২০ টাকায়। ১ কেজি আলু ৯০ টাকায়।

দোকানের মালিক মো. হোসেন বলেন, ছয়-সাত দিন ধরে নৌযান চলাচল বন্ধ, টেকনাফ থেকে খাদ্যসামগ্রী ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আনা যাচ্ছে না। আসন্ন কোরবানির ঈদ উপলক্ষে তিনি ১০ দিন আগে ৩ লাখ টাকার সয়াবিন তেল, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, ডিম ও চাল নিয়ে এসে গুদামে মজুত করেছিলেন। মানুষের কষ্ট হচ্ছে দেখে মজুত মালামাল বিক্রি করছেন। কিন্তু গুলিবর্ষণ বন্ধ না হলে দ্বীপের মানুষ না খেয়ে মরবেন।

সেন্ট মার্টিন বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবুল্লাহ খান বলেন, টেকনাফের সঙ্গে নৌযোগাযোগ বন্ধ থাকার কারণে দ্বীপে খাদ্যসামগ্রী ও নিত্যপণ্যের সংকট দেখা দিয়েছে। বাজারে ৯৬টি দোকান, ১০টি সবজি ও ১০টি চাল বিক্রির দোকান খালি হয়ে পড়েছে।

জনপ্রিয়