ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪ , ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন

বিবিধ

আমাদের বার্তা ডেস্ক 

প্রকাশিত: ০০:১০, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

সর্বশেষ

পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন

বিখ্যাত নোবেল পুরস্কার বিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন এর মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তিনি মূলত আপেক্ষিকতার তত্ত্ব (আধুনিক পদার্থবিজ্ঞানের দুটি স্তম্ভের একটি) এবং ভর-শক্তি সমতুল্যতার সূত্র, E = mc2 (যা ‘বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত সমীকরণ’ হিসেবে খেতাব দেয়া হয়েছে ) আবিষ্কারের জন্য বিখ্যাত।

আইনস্টাইন ১৮৭৯ খ্রিষ্টাব্দের ১৪ মার্চ জার্মানির উল্ম শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তার শৈশব কাটে মিউনিখে। আইনস্টাইনের বাবা-মা ছিলেন ধর্মনিরপেক্ষ মধ্যবিত্ত ইহুদি। বাবা হেরমান আইনস্টাইন মূলত পাখির পালকের বেড তৈরি ও বাজারজাত করতেন। পরবর্তীতে তাদের পরিবার মিউনিখে চলে এলে হেরমান তার ভাই জ্যাকবের সঙ্গে একমুখী বিদ্যুৎ নির্ভর বৈদ্যুতিক যন্ত্র নির্মাণের একটি কারখানা স্থাপন করে মোটামুটি সফলতা পান।

আইনস্টাইন ১৮৯৫ খ্রিষ্টাব্দে সুইজারল্যান্ডে চলে আসেন এবং পরের বছর জার্মান নাগরিকত্ব ত্যাগ করেন। পদার্থবিজ্ঞান এবং গণিতে বিশেষায়িত হওয়ায় ১৯০০ খ্রিষ্টাব্দে জুরিখের ফেডারেল পলিটেকনিক স্কুল থেকে একাডেমিক শিক্ষা ডিপ্লোমা অর্জন করেন। পরের বছর তিনি সুইজারল্যান্ডের নাগরিকত্ব অর্জন করেছিলেন, যা তিনি আর ত্যাগ করেন নি। প্রাথমিকভাবে কাজের জন্য সংগ্রাম করতে হলেও ১৯০২ থেকে ১৯০৯ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত বার্নের সুইজারল্যান্ডীয় পেটেন্ট অফিসে পেটেন্ট পরীক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

১৯৩৩ খ্রিষ্টাব্দে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে থাকাকালীন সময়ে এডলফ হিটলার জার্মানির ক্ষমতায় আসে। ইহুদী হওয়ার কারণে আইনস্টাইন আর জার্মানিতে ফিরে যান নি। আমেরিকাতেই তিনি থিতু হোন এবং ১৯৪০ খ্রিষ্টাব্দে আমেরিকার নাগরিকত্ব পান। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগে আগে তিনি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি. রুজভেল্টকে একটি চিঠি লেখেন।

চিঠিতে তিনি জার্মান পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচি সম্পর্কে সতর্ক করেন এবং আমেরিকাকেও একই ধরনের গবেষণা শুরুর তাগিদ দেন। তার এই চিঠির মাধ্যমেই ম্যানহাটন প্রজেক্টের কাজ শুরু হয়। আইনস্টাইন মিত্রবাহিনীকে সমর্থন করলেও পারমাণবিক বোমা ব্যবহারের বিরুদ্ধে ছিলেন। পরে ব্রিটিশ দার্শনিক বারট্রান্ড রাসেল সঙ্গে মিলে পারমাণবিক অস্ত্রের বিপদের কথা তুলে ধরে রাসেল-আইনস্টাইন ইশতেহার রচনা করেন। ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট ফর এডভান্সড স্টাডির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

১৯২০ খ্রিষ্টাব্দে তিনি রয়্যাল নেদারল্যান্ড একাডেমি অব আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস এর একজন বিদেশি সদস্য হন। তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে তার অবদান এবং বিশেষত আলোক তড়িৎ ক্রিয়া সম্পর্কিত সুত্র আবিষ্কারের জন্য ১৯২১ খ্রিষ্টাব্দে তিনি পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। যদিও আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্বটি তখনও কিছুটা বিতর্কিত হিসেবে বিবেচিত হয়েছিলো। এমনকি আলোক তড়িৎ সম্পর্কিত উদ্ধৃত গবেষণাকে ব্যাখ্যা হিসেবে বিবেচনা না করে শুধুমাত্র একটি সুত্রের আবিষ্কার হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছিলো। এর কারণ ১৯২৪ খ্রিষ্টাব্দে সত্যেন্দ্রনাথ বসু কর্তৃক প্ল্যাঙ্ক স্পেকট্রাম আবিষ্কারের পূর্বে ফোটনের ধারনাকে উদ্ভট মনে করা হতো এবং এর সর্বজন স্বীকৃতি ছিলো না। আইনস্টাইন ১৯২১ খ্রিষ্টাব্দে রয়্যাল সোসাইটির বিদেশি সদস্য নির্বাচিত হন।

এছাড়া তিনি ১৯২৫ খ্রিষ্টাব্দে রয়েল সোসাইটি থেকে কপলি পদকও পেয়েছিলেন। আইনস্টাইন ৩০০টিরও অধিক বৈজ্ঞানিক গবেষণাপত্র এবং ১৫০টির বেশি বিজ্ঞান-বহির্ভূত গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন। ১৯৯৯ খ্রিষ্টাব্দে টাইম সাময়িকী আইনস্টাইনকে ‘শতাব্দীর সেরা ব্যক্তি’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। এছাড়া বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানীদের একটি ভোটের মাধ্যমে জানা গেছে, তাকে প্রায় সবাই সর্বকালের সেরা পদার্থবিজ্ঞানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন। দৈনন্দিন জীবনে মেধাবী এবং প্রখর বুদ্ধিসম্পন্ন কাউকে প্রায়শই ‘আইনস্টাইন’ বলে সম্বোধন করা হয়। অর্থাৎ এটি প্রতিভা শব্দের সমার্থক শব্দ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দের এই দিনে আলবার্ট আইনস্টাইন মৃত্যুবরণ করেন।

জনপ্রিয়