ঢাকা শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪ , ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ আর্কাইভস ই পেপার

nogod
nogod
bkash
bkash
uttoron
uttoron
Rocket
Rocket
nogod
nogod
bkash
bkash

এবার মরণোত্তর কর্নিয়া  দান করলেন শিক্ষক

শিক্ষা

আমাদের বার্তা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৪:২২, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

এবার মরণোত্তর কর্নিয়া  দান করলেন শিক্ষক

এবার মরণোত্তর চক্ষুদান করলেন রাজধানীর অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক জামাল উদ্দিন। তিনি ৬২ বছর বয়সে গত শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কো-অপারেটিভ সোসাইটির অরুণা পল্লীর বাসায় মারা যান। তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী মৃত্যুর পরপরই সন্ধানী ইন্টারন্যাশনাল আই ব্যাংক দুটি কর্নিয়া সংগ্রহ করে।

বাবার চক্ষুদানের ব্যাপারে বড় ছেলে জাহিন জামাল গত শুক্রবার রাতে বলেন, বাবা মারা গেছেন সকাল ৮-৯টার দিকে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কো-অপারেটিভ সোসাইটির অরুণা পল্লীর বাসায়। তিনি মাসখানেক আগে থেকেই বলছিলেন, মারা যাওয়ার পর তার চোখ দুটি ও শরীরের অন্যান্য অঙ্গ এবং দেহটা যদি দান করা সম্ভব হয়, সেটা যেন করি। তা হলে ওনার ভালো লাগবে। মারা যাওয়ার পর বিষয়টি ভাইদের জানালাম। তখন জানতে পারি অন্য ভাইদের কাছেও বাবা তার ইচ্ছার কথা বলে গেছেন। প্রত্যেকে তার শেষ ইচ্ছার প্রতি সহমত জানিয়েছেন। পরে আমরা সন্ধানীর সঙ্গে যোগাযোগ করি। সন্ধানী দ্রুততম সময়ের মধ্যে এসে দুটি কর্নিয়া সংগ্রহ করে নিয়ে গেছে। বাবাকে মাগরিবের কিছুক্ষণ পরে অরুণা পল্লীর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

কর্নিয়া সংগ্রহ ও প্রতিস্থাপনের ব্যাপারে কথা হয় সন্ধানী জাতীয় চক্ষুদান সমিতির কো-অর্ডিনেটর সাইফুল ইসলাম চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ফোন পেয়ে খুব দ্রুত টিম নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাই। টিমের যারা কর্নিয়া সংগ্রহ করেন, তাদের সবারই প্রশিক্ষণ আছে। আমারও ইউরোপ ও ইরান থেকে ট্রেনিং করা আছে। আরেকজন আছেন ইমরান, তারও ইউরোপ থেকে ট্রেনিং করা আছে। সারা ইসলামের কর্নিয়াও আমি রাত ২টার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে সংগ্রহ করেছি। নন্দিতা বড়ুয়ার কর্নিয়াও আমি সংগ্রহ করেছি।’

জামাল উদ্দিনের দান করা কর্নিয়া আজ দুজন অন্ধ মানুষের চোখে প্রতিস্থাপন করা হবে বলে জানান সাইফুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি বলেন, সংগৃহীত কর্নিয়া ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যাবে। কিন্তু আমরা এত দেরি করবো না।

জনপ্রিয়